হামলাকারীদের ছাড় দেওয়া হবে না: শাল্লায় র‌্যাব ডিজি

হামলাকারীদের ছাড় দেওয়া হবে না: শাল্লায় র‌্যাব ডিজি

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের হিন্দু পাড়ায় হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলেছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের মহাপরিচালক (ডিজি) চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন। তিনি বলেন, শাল্লায় যে ঘটনা ঘটেছে তা অত্যন্ত নিন্দনীয় ও জঘন্য ঘটনা। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ছিল বুধবার। আমরা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনেরও কার্যক্রম শুরু করেছি। এই সময় নিরীহ হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকদের ওপর হামলার ঘটনা চরম নিন্দনীয়। হামলা যে বা যারাই করুক না কেন র‌্যাব তা বরদাশত করবে না। যখনই এরকম ঘটনা ঘটেছে তখনই দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার। এই গ্রামে যারা হামলা করেছে তাদের ছাড় দেওয়া হবে না। এটি র‌্যাবের সুস্পষ্ট বার্তা।

এরআগে, বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তিনি গ্রাম সংলগ্ন বরাম হাওরের মাঠে হেলিকপ্টারে অবতরণ করেন র‌্যাব ডিজি। পরে নোয়াগাঁও গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সঙ্গে দেখা করে তাদের সঙ্গে কথা বলেন। পুরো সময় জুড়ে তিনি গ্রামের বিভিন্ন বাড়ি পরিদর্শন করেন। পরে নোয়াগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি গ্রামবাসীর উদ্দেশ্যে বলেন, শাল্লায় এসে আমার লজ্জা লাগছে। আমাদের শাল্লায় এমন ঘটনা ঘটবে আমরা এটি প্রত্যাশা করিনি। অপরাধী শনাক্ত করণের কাজ চলমান রয়েছে। দ্রুততম সময়ে অপরাধীদের আটক করা হবে। এখানে কোনও ছাড় দেওয়া হবে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী রাত থেকে কাজ শুরু করেছে। গ্রামের মানুষের নিরাপত্তার জন্য র‌্যাব ও পুলিশের অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। পুনরায় যেন এমন ঘটনা কেউ ঘটাতে না পারে বা সাহস না পায়, সে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

র‌্যাব ডিজি আরও বলেন, যারা ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করে র‌্যাবকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করুন। আর অপরাধীর একমাত্র পরিচয়, তিনি অপরাধী। অন্যকোনও পরিচয় নেই।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল কে এম আজাদ, র‌্যাব ৯ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আবু মুসা মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম। পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, শাল্লা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুর রহমান মামুন, শাল্লা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মোক্তাদীর হোসেনসহ র‌্যাব ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

গত ১৫ মার্চ হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা যুগ্ম মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হক সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলা সদরে শানে রিসালাত সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন। ওই দিন রাতে শাল্লা উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের গোপেন্দ্র দাসের ছেলে ঝুমন দাস আপন তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে মামুনুল হককে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করে পোস্ট দেন। পরে এটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এ ঘটনায় ঝুমন দাসকে পরদিন রাতে এলাকাবাসী আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই রাতে প্রতিবাদ মিছিল করে এলাকাবাসী। পরদিন বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) সকাল ৮টার পর থেকে নোয়াগাঁও গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের বাড়িতে হামলা, ভাঙচরে ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এতে ৮৮টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ঘটনার পর থেকে এখন পর্যন্ত গ্রামে র‌্যাব পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *